Sunday , 15 September 2019
Home » Web Design » HTML ফ্রি বাংলা টিউটোরিয়াল,HTML ব্যাসিক আলোচনা-2 (পর্ব-3)

HTML ফ্রি বাংলা টিউটোরিয়াল,HTML ব্যাসিক আলোচনা-2 (পর্ব-3)

হ্যালো বন্ধুরা ,

আসসালামু আলাইকুম

যারা আগের পর্ব দেখেন নি তাদের জন্য আগের পর্বের লিংক-

HTML ফ্রি বাংলা টিউটোরিয়াল,HTML নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা।HTML শিখে ক্যারিয়ার গড়া সম্ভব? বিস্তারিত আলোচনা।

HTML ফ্রি বাংলা টিউটোরিয়াল,HTML ব্যাসিক আলোচনা-১ (পর্ব-২)

সবাই কেমন আছেন,আজকে আমি আপনাদের জন্য HTML ব্যাসিক আলোচনা-2 (পর্ব-3) নিয়ে হাজির হয়েছি,আজকের পর্বে আপনাদের জন্য যা যা রয়েছে-

১)অ্যাট্রিবিউট লেখার নিয়ম

2)ভ্যালিউ সেট করার নিয়ম

৩)HTML এর প্রধান অ্যাট্রিবিউট সমূহ

৪)কনটেন্ট (Contents)

৫) HTML এক্সটেনশন (Extension)

৬) HTML এডিটর

তাহলে দেখে নিলেন আজকের সূচি পত্র এবার চলুন মুল আলোচনায়-

১)অ্যাট্রিবিউট লেখার নিয়ম

HTML এ অ্যাট্রিবিউট লেখার নিয়ম হচ্ছে ওপেনিং ট্যাগ এর মধ্যে ট্যাগ এর নাম এর পর একটি স্পেস ব্যবহার করে অ্যাট্রিবিউট উল্যেখ করতে হয়।

<Tag_name attribute_name

2)ভ্যালিউ সেট করার নিয়ম

অ্যাট্রিবিউট এর ভ্যালিউ সেট করার জন্য অ্যাট্রিবিউট এর নামের পরে একটি ইকুয়াল সাইন, তারপর কোটেশন এর মধ্যে ভ্যালিউ লিখতে হয়।

” value “

নিচে অ্যাট্রিবিউট ও ভ্যালিউ ব্যবহার করে ট্যাগ লিখে দেখানো হল ঃ

বিঃদ্রঃভ্যালিউ অ্যাসাইন করার সময় কোটেশন ব্যবহার করা আবশ্যক। সিংগেল এবং ডাবল কোটেশন – উভয় পদ্ধতি ব্যবহার করা যাবে।

৩)HTML এর প্রধান অ্যাট্রিবিউট সমূহ

HTML এ উল্যেখ কিছু অ্যাট্রিবিউট রয়েছে, যেগুলো প্রায় সব ধরণের ট্যাগ এর সাথে ব্যবহারযোগ্য। এগুলো হলঃ id, class, title এবং style ।

এবার আমরা id, class, title এবং style সম্পর্কে একে একে জানব।

id

HTML পেজের কোন ট্যাগকে নির্দিষ্টভাবে সনাক্ত করার জন্য id অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার করা হয়ে
থাকে। HTML পেজকে যখন কোন CSS অথবা JavaScript ফাইলের সাথে লিংক করা হয়, তখন HTML এর
ট্যাগকে ID অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার এর মাধ্যমে উক্ত CSS অথবা JavaScript ফাইল যথাযথ কাজ সম্পাদন করে থাকে।
যেমন ঃSEE THE PHOTO-

class

HTML পেজের মধ্যে একই রকমের বিভিন্ন ট্যাগকে আলাদা-আলাদাভাবে সনাক্ত করার জন্য CLASS অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যেমন ঃ কোন একটি HTML পেজের মধ্যে ৪টি <P> ট্যাগ রয়েছে। এখন আমি যদি এই ৪টি <P> ট্যাগকে আলাদা-আলাদাভাবে সনাক্ত করতে চাই, তবে class Attribute এর মাধ্যমে
সংজ্ঞায়িত করতে হবে। যেমন ঃ

বিঃদ্রঃ HTML ID এবং CLASS অ্যাট্রিবিউট এর ভ্যালিউ ‘কেস-সেনসিটিভ’। ভ্যালিউ হিসেবে যে কোন নাম হতে পারে,সেই মান ধরে CSS অথবা JAVASCRIPT প্রয়োজনীয় কাজ সম্পাদন করবে। ভ্যালিউ অবশ্যই লেটার দিয়ে শুরূ হতে
হবে এবং পরবর্তীতে নাম্বার (০-৯), হাইফেন (-), আন্ডারস্কোর ( _ ), কমা (,) ব্যবহার করা যেতে পারে।

title

HTML পেজের কোন ইলিমেন্টকে (ইলিমেন্ট নিয়ে পরবর্তী পার্ট গুলোতে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে) ব্রাউজারে নির্দেশ করার জন্য title অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার করা হয়ে থাকে। title অ্যাট্রিবিউট সাধারণত
<a>, <area>, <img>, <link>, <abbr>, <acronym> ট্যাগ গুলোতে বেশি ব্যবহৃত হয়ে থাকে।পোস্টের পরবর্তী পার্ট গুলোতে title অ্যাট্রিবিউট এর ব্যবহার দেখানো হবে।

style

HTML পেজে এক লাইন বিশিষ্ট কোন ইলিমেন্টে স্টাইল ( Inline CSS ) প্রয়োগ করার জন্য style অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যেমন ঃ-নিচের <p> ট্যাগে স্টাইল অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার করে এর ফন্ট ও কালার পরিবর্তন করা হয়েছে।

< p style=”font-family:arial; color:#FF0000;” > Some text. < /p >

৪)কনটেন্ট (Contents)

ওয়েবপেজে আমরা যা দেখতে পাই, (টেক্সট, ইমেজ, অডিউ, ভিডিউ ইত্যাদি) সব কিছুই কনটেন্ট। উদাহরণস্বরূপ ঃআমরা যদি ওয়েবপেজকে একটি কনটেইনার এর সাথে তুলনা করি যে, একটি কনটেইনার এর মধ্যে কি থাকে ? চাল,
ডাল, পানি ইত্যাদি। কনটেইনার এসব কিছু ধারণ ( contain ) করে। আর ধারণকৃত চাল, ডাল, পানি হচ্ছে উক্ত কনটেইনার এর কনটেন্ট ( contain )। ঠিক তেমনি, এখানে কনটেইনার হচ্ছে আমাদের ওয়েবপেজ আর কনটেইনার এর
মধ্যে থাকা চাল,ডাল, পানি ইত্যাদি যাবতীয় কনটেন্ট হচ্ছে ওয়েবপেজে ব্যবহৃত টেক্সট, ইমেজ, অডিউ, ভিডিউ ইত্যাদি।

চিত্র : (ওয়েবপেজ এর কনটেন্ট সমূহ)।

৫) HTML এক্সটেনশন (Extension)

কম্পিউটারে ব্যবহৃত প্রতিটি ফাইল, বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ এর নিজস্ব এক্সটেনশন/ফরম্যাট রয়েছে। এক্সটেনশন
বলতে একটি ফাইল যে নামে সেভ করা হয়ে থাকে, তাকে বুঝায়। যেমন ঃ-বিভিন্ন ভিডিও ফাইলের এক্সটেনশন ঃ”.avi, .vod. .dat, .mp4″ ইত্যাদি হয়ে থাকে। বিভিন্ন অডিও ফরম্যাটের গান এর এক্সটেনশন ঃ “.mp3, .amr, .wav” ইত্যাদি হয়ে থাকে। আবার বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ যেমন ঃ-পিএইচপি‘র এক্সটেনশন হচ্ছে “. php “,
JavaScript প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ এর এক্সটেনশন হচ্ছে “. js “। ঠিক তেমনি HTML ল্যাংগুয়েজ এর এক্সটেনশন
হচ্ছে “. HTML”। এক্সটেনশন ব্যাতিত অথবা এক্সটেনশন পরিবর্তন হলে কোন ভাবেই উক্ত ফাইল কাজ করবে না। যেমন ঃ কোন অডিও ফাইলের এক্সটেনশন পরিবর্তন করে যদি ইমেজ ফরম্যাট ফাইলের এক্সটেনশন ” .jpg, .gif, .png” দেয়া
হয়, তাহলে যেমন উক্ত অডিও ফাইল কাজ করবে না, ঠিক তেমনি HTML এর এক্সটেনশন পরিবর্তন করে যদি “.php ” রাখা হয়, তাহলে এটি ও কাজ করবে না। সুতরাং এক্সটেনশন অতি গুরূত্বপূর্ণ বিষয়।

৬) HTML এডিটর

এইচটিএমএল কোড লিখার জন্য আমাদের একটি টেক্সট এডিটর প্রয়োজন হবে, যেমন – Notepad, Notepad ++, Text Editor ইত্যাদি। এছাড়া, বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের IDE (Integrated Development Environment) Software যেমন:-(Macromedia Dreamweaver, Adobe Dreamweaver ইত্যাদি) রয়েছে, যেগুলো ব্যবহার করে সহজ ও স্বল্প সময়ে প্রোগ্রাম লেখা যায়। ম্যাক্রোমিডিয়া ড্রিমওয়েভার ব্যবহার করে অনায়াসেই অনেক আকর্ষনীয় ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়।

বন্ধুরা এখানেই শেষ করছি আজকের পোস্ট অনেক লম্বা হয়ে যাচ্ছে আজকের পোস্ট,আসলে বেশী ললম্বা পোস্ট করলে আপনাদের ও হয়ত বিরক্তি লাগবে তাছাড়া আমার লিখতে লিখতে হাতে ব্যাথা করতেছে তাই এখানেই শেষ করছি আজকের পোস্ট সবাই ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন আমাদের সাইটের সাথেই থাকুন অপেক্ষায় থাকুন পরের পোস্ট এর মিয়ে আসব শিগ্রই ইনশাআল্লাহ।

আল্লাহ হাফেজ।

About Mir Md Aminul Haque

প্রযোক্তিকে ভালবাসি ,নিত্য জানতে চাই নতুন কিছু,ছড়িয়ে দিতে চাই উজার করে নিজের জ্ঞান সবার মাঝে।

Check Also

deactivate laptops built in keyboard

deactivate laptops built in keyboard – দেখেনিন কিভাবে।

deactivate laptops built in keyboard এই পোস্টটা আপনার জন্য খুবই দরকারি ,যদি আপনি laptop user…

Leave a Reply

Your email address will not be published.